রামগতিতে লগডাউন মানছেন না ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুুষ

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলায় চলমান লগডাউন মানছেন না এলাকার ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষ। উপজেলা প্রশাসন মানুষকে সচেতন ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করলেও করোনা সংক্রমণ রোধে জনস্বার্থে নেওয়া ওইসব কার্যক্রম মানছেন না তারা। সম্প্রতি এই উপজেলায় প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণ আশংকাজনক হারে বৃদ্ধি পাওয়ায় উপজেলার পৌরসভা ও দুটি ইউনিয়নকে রেড জোন চিহ্নিত করে এই লকডাউন ঘোষণা দেওয়া হয়।

১৫ জুন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আব্দুল মোমিন স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত একটি গণবিজ্ঞপ্তি জারি করে ১৬ জুন ভোর ৬টা থেকে ৩০ জুন রাত ১২টা পর্যন্ত ওই এলাকাগুলোকে ফের লকডাউন ঘোষণা করা হয়। ঘোষণায় বলা হয় এসময় আন্তঃউপজেলা ও আন্তঃইউনিয়নের সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকার পাশাপাশি উপজেলায় প্রবেশ ও বাহির নিষিদ্ধ থাকবে। এ ছাড়া সকল প্রকার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ (ঔষধের দোকান ছাড়া) থাকার পাশাপাশি সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে। এসময় জরুরী প্রয়োজন ছাড়া মানুষকে ঘর থেকে বের না হতে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে নির্দেশনা দেওয়া হয়।

সরেজমিনে গেলে দেখা যায়, রেড জোন হিসাবে লগডাউন ঘোষণা করা উপজেলার সদর ও পৌরসভার কেন্দ্রস্থল আলেকজান্ডার বাজারে দোকানপাট খোলা থাকার পাশাপাশি বাজারগুলোর ভিতরের গলিতে বিভিন্ন পণ্যের হাট বসতে দেখা গেছে। এসব হাটগুলোতে নারী-পুরুষ ক্রেতাদের প্রচুর ভিড় দেখা যায়। ক্রেতা-বিক্রেতা উৎসবমুখর পরিবেশে বেচা-কেনা করছে। জটলা পাকিয়ে চায়ের দোকানের সামনে এবং ভিতরে আড্ডা দেওয়াসহ বাজারগুলোতে সাধারণ মানুষের রয়েছে অবাধ বিচরণ। কোন কোন দোকানের বাহিরে লোক বসিয়ে রাখা হয়েছে। প্রশাসনের গাড়ি বা প্রশাসনের কর্মকর্তারা আসার কথা শুনলে সাময়িক সময়ের জন্য দোকান বন্ধ করে ব্যবসায়ীরা গাঁ-ঢাকা দিলেও কর্মকর্তারা চলে গেলেই ফিরে আসে পুরোনো চেহারা। তাছাড়া অভ্যন্তরীন সড়কে বাজারগুলোতে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান আগের মতো খোলা রয়েছে। সিএনজি চালিত অটোরিক্সা, ব্যাটারী চালিত ইজিবাইক ও রিক্সায় গাদাগাদি করে অবাধে যাত্রী চলাচল করছে। উপজেলার রেড জোন হিসাবে লগডাইন ঘোষণা করা পৌরসভা, বড়খেরী ও চরগাজী ইউনিয়নের সবচেয়ে বড় বাজার জমিদারহাট ও রামগতিরহাট বাজারসহ ইউনিয়নের প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলের হাট-বাজারগুলোতে একই চিত্র রয়েছে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা যায়। তবে রামগতি থেকে ঢাকা, চট্টগ্রামগামী এবং রামগতি-লক্ষ্মীপুর সড়কে চলাচলকারী যাত্রীবাহী লোকাল বাসগুলো বন্ধ রয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট মালিক সমিতি সূত্রে জানা গেছে।

রামগতি পৌরসভার মেয়র এম মেজবাহ উদ্দিন বলেন, জনগনরে নিরাপত্তা ও করোনা সংক্রমন রোধে প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাহিরে না যেতে এবং সামাজিক দুরত্ত্ব বজায় রেখে চলার নির্দেশনা দেওয়ার পরও তারা মানছেন না। এতে করে এলাকার মানুষ ঝুকির মধ্যে পড়েছেন।

রামগতি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ সোলাইমান বলেন, জনসচেতনতা বৃদ্ধি ও সরকারি নির্দেশনা মানার জন্য পুলিশের পক্ষ থেকে বারবার প্রচার চালানো হচ্ছে এবং প্রতিনিয়ত টহল দেওয়া হচ্ছে। হয়ত পুলিশ চলে আসার পর পুনরায় মানুষের সমাগম বাড়ছে। তবে টহল আরো জোরদার করা হবে বলে তিনি জানান।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আব্দুল মোমিন বলেন, উপজেলায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ আশঙ্কাজনক হারে বেড়ে চলেছে। এমন পরিস্থিতে সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ করতে অধিক সংক্রমিত এলাকাগুলোকে রেড জোন চিহ্নিত করে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। এসময় জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘর থেকে বের না হতে নির্র্দেশনা দেওয়া হয়। সরকারি নির্দেশনা অমান্যকারিদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

ইত্তেফাক/আরকেজি

সূত্রঃ দৈনিক ইত্তেফাক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: