ঝিনাই নদীর ঝুঁকিপূর্ণ বেইলি ব্রিজে যান চলাচল বন্ধ

৩০ বছরের পুরোনো ৩০০ গজের ব্রিজ। ডেকিং বা পাটাতনে গুনে গুনে ৩০৩টি তালি। ভারী যানবাহন উঠলে আস্ত ব্রিজ দুলতে থাকে। পাটাতনের মরচে ধরা গর্তে গাড়ির চাকা আটকে যায়। তিন দশকে দুর্ঘটনায় হতাহত শতাধিক। তবুও জীর্ণ বেইলি ব্রিজের স্থলে গার্ডার ব্রিজ হচ্ছে না। গোপালপুর উপজেলার ঝিনাই নদীর ঝাওয়াইল বেইলি ব্রিজের চিত্র এটি।

জানা যায়, ৯১ সালে সড়ক ও জনপথ বিভাগ পোড়াবাড়ী-জগন্নাথগঞ্জ ভায়া গোপালপুর সড়কের ঝিনাই নদীর এ ব্রিজ নির্মাণ করে। এটি টাঙ্গাইলের অন্যতম বৃহত্ বেইলি ব্রিজ। জেলার সব বেইলি ব্রিজ গার্ডার ব্রিজ হলেও এটি তেমনি রয়ে গেছে। ৯৫ সালে মালবাহী ট্রাক দুর্ঘটনায় ব্রিজটির ব্যাপক ক্ষতি হয়। এরপর থেকে ডেকিং বা পাটাতনের লোহার প্লেটে তালি দেওয়া শুরু হয়। এ তালি চলছে ২৬ বছর ধরে। দীর্ঘদিনের পুরোনো ডেকিং রোদ বা বৃষ্টিতে এবং যানবাহনের চাকার ঘর্ষণে ভঙ্গুর হয়ে গেছে। মরচে ধরে পাটাতনে অসংখ্য ফুটো। ঝাওয়াইলের সিএনজিচালক আরিফ জানান, পাটাতনের জং ধরা লোহার প্লেটে প্রায়ই যানবাহনের চাকা আটকে যায়। তখন ঘটে দুর্ঘটনা। রাতেরবেলা প্রায়ই দুর্ঘটনায় প্রাণহানি ঘটে। শ্রমিক নেতা সুরুজ্জামান জানান, টাঙ্গাইল ও জামালপুরকে সংযুক্ত করা সড়কের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্রিজ এটি। প্রতিদিন বাস, ট্রাক, লরি, সিএনজিসহ অসংখ্য যানবাহন পারাপার হয়। নদীর পূর্ব পাড়ে ২০১ গম্বুজ মসজিদ। পশ্চিম পাড়ে দেড়শ বছরের পুরোনো হেমনগর জমিদার বাড়ি। এসব পরিদর্শনে আসা পর্যটকরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ব্রিজ পারাপার হন।

ঝাওয়াইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম জানান, ব্রিজটি এখন মরণ ফাঁদ। তিন দশকে ব্রিজের উভয় পাড়ের ২৭ কিলো সড়ক চারবার পুনঃনির্মাণ, সংস্কার ও প্রশস্তকরণ হয়েছে। চলতি অর্থবছরে ৪২ কোটি টাকা ব্যয়ে সড়ক প্রশস্তকরণ ও পুনঃনির্মাণ হচ্ছে। কিন্তু ঝুঁকিপূর্ণ বেইল ব্রিজটি ভেঙে গার্ডার ব্রিজ হচ্ছে না।

সোমবার ৭ জুলাই টাঙ্গাইল সড়ক ও জনপথ বিভাগ এক প্রেস রিলিজে জানায়, ব্রিজ মেরামতের জন্য আগামী ১২ জুলাই পর্যন্ত যান চলাচল বন্ধ থাকবে।

এ ব্যাপারে সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী মোজাম্মেল হোসেন জানান, ব্রিজটি খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। মাঝেমধ্যেই জোড়াতালি দিয়ে চালু রাখা হয়। এখানে একটি গার্ডার সেতু করার প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

ইত্তেফাক/এমএএম

সূত্রঃ দৈনিক ইত্তেফাক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: