রাস্তা নয়, যেন চাষ করা জমি

এলজিইডির আওতায় নির্মিত জনগুরুত্বপূর্ণ রাণীনগর-কালীগঞ্জ-আত্রাই সড়কের বিভিন্ন জায়গায় বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। সড়কটি যেন মৃত্যু ফাঁদে পরিণত হয়েছে। বিশেষ করে সড়কের কালীগঞ্জ থেকে আত্রাই সদর পর্যন্ত ১৬ কিলোমিটার রাস্তার প্রায় সব জায়গার কার্পেটিং উঠে সৃষ্টি হয়েছে ছোট ছোট পুকুরের। বর্তমানে এই সড়ক দেখে মনে হবে যেন চাষ করা ধানের জমি।

এই সড়ক দিয়েই যেতে হয় বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্মৃতি বিজড়িত আত্রাই উপজেলার পতিসর কুঠিবাড়িতে। যেখানে প্রতিনিয়ত পর্যটকদের রয়েছে আসা-যাওয়া। এছাড়াও আত্রাই থেকে বগুড়ার সঙ্গে যোগাযোগের একমাত্র সড়ক আত্রাই-কালীগঞ্জ সড়ক। এদিকে রাণীনগর উপজেলার ভোঁপাড়া ইউনিয়নের কাশিয়াবাড়ি, সোনাইডাঙ্গা ও আত্রাই উপজেলার মনিয়ারী ইউনিয়নের কচুয়া, পালশা, নওদুলীসহ দুই উপজেলার অর্ধশতাধিক গ্রামের মানুষের উপজেলার সঙ্গে যোগাযোগের জন্য এ সড়কের বিকল্প নেই। প্রতিনিয়ত হাজার হাজার মানুষকে বিভিন্ন প্রয়োজনে এ সড়ক দিয়ে বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করতে দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে।

সিএনজিচালক রাজু, আরমানসহ অনেকেই বলেন, প্রতিদিন শতাধিক সিএনজি এই সড়ক দিয়ে চলাচল করে। আমরা চালকরা ঝুঁকি নিয়ে এই সড়কে সিএনজি চালাই। রাস্তার বিভিন্ন স্থানে বড় বড় গর্ত হওয়ায় ঐ জায়গাগুলোতে বিভিন্ন সময় ভটভটি, অটোরিকশা ও সিএনজি উলটে গিয়ে অনেকে আহতও হয়েছেন। জনদুর্ভোগ লাঘবে সড়কটি দ্রুত সংস্কার করা প্রয়োজন।

নওদুলী গ্রামের শফির উদ্দিন বলেন, বিভিন্ন কাজে আমাদের প্রতিনিয়ত উপজেলায় যাতায়াত করতে হয়। সড়কটির বেহাল অবস্থা হওয়ায় ঝুঁকি নিয়েই চলাচল করতে হচ্ছে।

নওগাঁ এলজিইডির সিনিয়র সহকারী প্রকৌশলী মোবারক হোসেন বলেন, রাণীনগর-কালীগঞ্জ-আত্রাই সড়কের সংস্কার কাজের দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। ঠিকাদারও নির্বাচন হয়েছে। বর্ষাকাল শেষ হলেই কাজ শুরু করা হবে। তিনি আরো বলেন, সড়কটির প্রস্থ বৃদ্ধিসহ টেকসই সড়ক হিসেবে নির্মাণ করা হবে।

ইত্তেফাক/এমএএম

সূত্রঃ দৈনিক ইত্তেফাক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: