চাটমোহরে মহিলাকে মারপিট ও চুল কর্তন, থানায় মামলা আটক ৯

পাবনার চাটমোহরে অসামাজিক কার্যকলাপে লিপ্ত থাকার অভিযোগে গ্রামবাসী এক মহিলা ও তার কথিত প্রেমিককে মারপিট করে চুল কর্তন করেছে। এ ঘটনায় ওই মহিলা চাটমোহর থানায় অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ অভিযান চালিয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ গ্রামের ১০ জনকে আটক করে।

মঙ্গলবার (২১ জুলাই) দিবাগত রাত সাড়ে ১০টার দিকে ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার ছাইকোলা ইউনিয়নের কুকড়াগাড়ী গ্রামে ।

এ ঘটনায় বুধবার (২২ জুলাই) চাটমোহর থানায় ওই মহিলা ইউপি সদস্যকে বাদ দিয়ে বাদী হয়ে ১৭ জনের কয়েকজনকে অজ্ঞাত আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। এঘটনায় পুলিশ গ্রামের ৯ জনকে আটক করেছে। গ্রেফতারকৃতরা হলেন,কুকড়াগাড়ী গ্রামের রেজাউল করিম মঞ্জু (৪০),মোতালেব হোসেন (৪০),আলিফ হোসেন (৩২),জমিন উদ্দিন (৩২),মুক্তার হোসেন (৩৪),আলম হোসেন (৪০),কালু প্রাং (৩০),আয়নাল হোসেন (৪০) ও মামুন হোসেন (৩০)।

গ্রামবাসী জানায়,মঙ্গলবার দিবাগত রাতে কুকড়াগাড়ী গ্রামের জাহান আলীর স্ত্রী রেখা খাতুন (৩৫) ও সুরুজ আলীর ছেলে সাইফুল ইসলাম (৩৮) রেখার বাড়িতে অসামাজিক কাজে লিপ্ত হয়। এসময় ছাইকোলা ইউনিয়নের মেম্বার আ. ওহাবসহ গ্রামবাসী তাদের আটক করে। দু’জনকে মারপিট করে চুল কেটে দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ রেখা ও সাইফুলকে থানায় নিয়ে আসে। মেম্বারসহ গ্রামবাসীকেও থানায় নিয়ে আসে। পরে গ্রামবাসীকে আটক দেখানো হয়। বুধবার রেখা খাতুন বাদী হয়ে ইউপি সদস্য আ. ওহাবকে বাদ দিয়ে চাটমোহর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার অন্যতম সাক্ষী করা হয়েছে রেখার কথিত প্রেমিক সাইফুল ইসলামকে।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে,সাইফুল ইসলাম রেখার কাছে ১ হাজার টাকা পেত। সেই টাকা আনতে সে মঙ্গলবার রাতে রেখার বাড়িতে যায়। রেখার ঘরে বসে কথা বলার সময় গ্রামের কতিপয় ব্যক্তি তাদেরকে আটক করে মারপিট করে। এক পর্যায়ে চুল কেটে দিয়ে বেঁধে রাখে। গ্রামবাসীর কাছ থেকে পুলিশ তাদেরকে উদ্ধার করে।

চাটমোহর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: আমিনুল ইসলাম মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, মহিলাকে মারপিট ও চুল কেটে দেওয়ার ঘটনায় মামলা হয়েছে। ৯ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

ইত্তেফাক/এমএএম

সূত্রঃ দৈনিক ইত্তেফাক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: