কৃষকলীগ নেতার জবরদখল ও অত্যাচার থেকে বাঁচতে চায় ভুক্তভোগীরা

পটুয়াখালীর কলাপাড়া পৌর কৃষকলীগ সভাপতি এসএম মরতুল্লা সৌরভ ওরফে মনু সিকদারের অত্যাচার থেকে নিষ্কৃতি পেতে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভুক্তভোগী প্রতিষ্ঠান ও পরিবারবর্গ।

শনিবার বেলা ১১টায় কলাপাড়া প্রেসক্লাব কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যদের পক্ষে লিখিত বক্তব্য পড়েন মনিবুর রহমান।

এসময় সুনির্মল হাওলাদার, হাজী ওয়াজেদ আলী মাস্টারবাড়ি মসজিদ কমিটির হারুন হাওলাদার, হাজী ওয়াজেদ আলী ওয়াকফ স্টেটের এম রিফাত ইসলাম, খেপুপাড়া নেছারুদ্দিন ফাজিল মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা নাছির উদ্দীন হাওলাদার উপস্থিত ছিলেন।

লিখিত বক্তব্যে মনিবুর রহমান বলেন, কলাপাড়া পৌর কৃষকলীগ সভাপতি এসএম মরতুল্লা ওরফে মনু সিকদার দলীয় ক্ষমতার অপব্যবহার করে মসজিদ, মাদরাসা, সংখ্যালঘু মানুষের জমি দখল ও চাঁদাবাজি করে আসছেন। এলাকার হিন্দু ও মুসলিম উভয় সম্প্রদায়কে দমনপীড়ন করছেন। বয়োজ্যেষ্ঠসহ বিভিন্ন বয়সী মানুষকে শারীরিক নির্যাতন, সাধারণ মানুষের প্রাপ্য টাকা না দেওয়া, মাদক ও অনৈতিক কর্মকাণ্ড তার নিত্য দিনের কাজ।

মনিবুর রহমান বলেন, তার মা নুরজাহান সিকদারের জমির সঙ্গে খেপুপাড়া নেসারুদ্দিন ফাজিল মাদরাসার সুবিধার্থে মাদরাসার স্থাবর সম্পত্তির এওয়াজ বদল হয়। এওয়াজ বদলের পর ১৯৫৩ সাল থেকে তারা বাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করছে। একই সম্পত্তি থেকে আল-হেরা জামে মসজিদ ও দারুল ইহসান মডেল মাদরাসা ও দারুল ইহসান হিফজুল কুরআন মাদরাসা জায়গা দান করেছি। চলমান এসব প্রতিষ্ঠানগুলো নিচু পতিত জমি বালু ভরাট করলে লোভাতুর দৃষ্টি পরে সৌরভ সিকদারের।

তিনি আরো বলেন, জমি দখলের উদ্দেশ্যে প্রকাশ্যে একদল গুণ্ডা নিয়ে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে কাজ বন্ধ করে দেয় সৌরভ সিকদারের। প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ড পুকুরে ফেলে ২ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। অন্যথায় মারধর ও হত্যার হুমকি দেয়। সৌরভের সঙ্গে জমির কোনো ধরণের সম্পর্ক না থাকলেও সম্পূর্ণ দলীয় ক্ষমতা প্রয়োগ করে জোর-জবর দখল করার জন্য গত ৬ মাস ধরে তাদের পরিবারকে হয়রানি করছে। এনিয়ে ওই জমিতে কলাপাড়া বিজ্ঞ সিনিয়র সহকারী জজ আদালতের চিরন্তন নিষেধাজ্ঞা মামলা চলমান রয়েছে। যার মামলা নং ১৯৩/২০।

হিন্দু পরিবার পরিমল গংদের পক্ষ থেকে সুনির্মল হাওলাদার বলেন, বাবা কালিকান্তের ক্রয়সূত্রে পাওয়া জমি ৭০ বছর ধরে ভোগ দখলে থাকলেও কয়েক বছর আগে জমির সীমানা ভেঙ্গে দিয়েছে সৌরভ। জমিতে ঘর তুলতে গেলে বাধা প্রদান করে। ২০১১ সাল থেকে মামলা (মামলা-৩৭/২০১১) চললেও তার হামলার ভয়ে মুখ খুলতে পারছি না। মামলা ৩৫ নং খতিয়ান থেকে হলেও সৌরভ ৭৯ নং খতিয়ানের জায়গা যার সকল দালিলিক কাগজপত্র, বিএস পর্চা থাকলেও শুধু হয়রানি করার উদ্দেশ্যে এই দাগেও সে সীমানা প্রাচীর ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়েছে। যাদের কাছে হিন্দু পরিবারটি জমি বিক্রি করেছে তাদেরকে ভোগ দখল করতে দেয় না।

খেপুপাড়া নেছারুদ্দিন ফাজিল মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা নাছির উদ্দীন হাওলাদার লিখিত বক্তব্যে বলেন, ৭২ বছরের দখলকৃত মাদরাসা ক্যাম্পাসের ভিতরের ৯৮৩ নং দাগের ২.২৭ একর জমি ২০০৯ সাল থেকে দখলে নেওয়ার জন্য সৌরভ ও তার পরিবার বিভিন্ন মানুষের নামে সাইনবোর্ড টানিয়ে হয়রানি করছে। বিভিন্ন সময় অধ্যক্ষসহ-শিক্ষকদের লাঞ্ছিত করেছে। প্রকাশ্য দিবালোকে হামলার চেষ্টাও করেছে। শিক্ষার্থীরা এর প্রতিবাদে মানববন্ধন করার ঘটনা অতীতে একাধিকবার ঘটেছে।

হাজী ওয়াজেদ আলী মাস্টারবাড়ি মসজিদ কমিটির হারুন হাওলাদার বলেন, ২০১৭ সালে মসজিদের জমি দখলের জন্য বেআইনিভাবে অনুপ্রবেশ করলে সৌরভ সিকদারসহ সকল বিবাদীদের নামে মসজিদ কর্তৃপক্ষ ১১/২০১৯ নং ভায়োলেশন মামলা দাখিল করা হয়েছে। যা আদালতে বিচারাধীন রয়েছে।

এ বিষয়ে এসএম মরতুল্লা সৌরভ ওরফে মনু সিকদার বলেন, তার বিরুদ্ধে আনা সকল অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। পারিবারিক বিরোধকে পুঁজি তার পরিবারের দীর্ঘদিনের ক্লিন ইমেজের রাজনৈতিক পরিচয়কে বিতর্কিত করার জন্য একটি চক্র ষড়যন্ত্রে নেমেছে।

ইত্তেফাক/জেডএইচ

সূত্রঃ দৈনিক ইত্তেফাক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: