চিতলমারীতে আখ চাষে ভাগ্য বদলের স্বপ্ন দেখছেন চাষিরা

অতিবৃষ্টি-অনাবৃষ্টি ও প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে ধান ও সবজি চাষ করে বার বার ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন চাষিরা। এমন পরিস্থিতিতে বিকল্প হিসাবে বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলার চাষিরা আখ চাষের দিকে ঝুঁকছেন। এটি চাষের মাধ্যমে ভাগ্য বদলের স্বপ্ন দেখছেন তারা।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, উপজেলার সীমান্তবর্তী বলেশ্বর নদীর চর এলাকার জমিতে এ বছর ব্যাপক ভাবে আখের আবাদ করা হয়েছে। চাষিরা রাত-দিন ক্ষেতের পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। এখানকার জমিতে গ্যালারী, তুরপিন জাতের আখের চাষ করা হয়েছে। অনেকে আখ বাজারে তুলতে শুরু করেছেন। এ বছর বাজার দর ভাল থাকায় খুশি চাষিরা। অতি বৃষ্টির কারণে কিছু ক্ষেত ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় সেটি সারিয়ে তোলার চেষ্টায় অনেকে ব্যস্ত। আখ চাষ বেশ লাভজনক হওয়ায় এটি চাষের মাধ্যমে অতীতের লোকসান কাটিয়ে উঠা সম্ভব বলে চাষিরা অনেকে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

আরো পড়ুনঃ ওসি প্রদীপ-লিয়াকতসহ ৭ পুলিশের ফের চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর

উপজেলার চরডাকাতিয়া গ্রামের আখচাষি শচিন বালা, স্বপন মজুমদার, মিলন হীরা, হিরক মণ্ডল, কিরণ মণ্ডলসহ অনেকে জানান, ধান-সবজি চাষ করে প্রতি বছর লোকসান গুণতে হয়। বিকল্প হিসাবে আখচাষ অনেক লাভজনক। চরের জমিতে অন্যান্য ফসলের চেয়ে আখের ফলন বেশ ভালো হয়েছে। গত কয়েক দিনের বৃষ্টিতে আখক্ষেতে কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে অবহাওয়া পরিবর্তন হওয়ায় সে দুশ্চিন্তা অনেকটা দূর হয়েছে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ঋতুরাজ সরকার জানান, এ বছর চর এলাকার জমিতে আখের চাষ করা হয়েছে। আখ একটি লাভজনক ফসল। ফলন ভালো হলে প্রতি হেক্টর জমি থেকে ৭- ৮ লাখ টাকার আখ বিক্রি করা সম্ভব। এটি চাষের মাধ্যমে চাষিরা লাভবান হতে পারেন।

ইত্তেফাক/এমএএম

সূত্রঃ দৈনিক ইত্তেফাক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: