চসিক নির্বাচনে স্বামীর ধনে ধনাঢ্য স্ত্রীরাও

চট্টগ্রাম, ১৯ জানুয়ারি- চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচনের বাকি আর মাত্র আট দিন। শেষ মুহূর্তের প্রচার-প্রচারণায় আলোচনায় উঠে আসছে প্রতিটি ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীদের হলফনামা নিয়ে। নির্বাচন কমিশনে জমা দেওয়া সেই পুরনো হলফনামা নতুন করে আলোচনা চলছে ভোটারদের মাঝে। নগরীর ৪১টি ওয়ার্ডে ১৭২ জন কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন। এসব প্রার্থীর নির্বাচন কমিশনে জমা দেওয়া হলফনামায় উঠে এসেছে অর্থ-সম্পদের পাশাপাশি স্বামীর চেয়ে ধনাঢ্য অবস্থানে আছেন তাদের স্ত্রীরাও।

সাধারণ ভোটাররা বলছেন, কাউন্সিলর প্রার্থীদের আয়ের উৎস, ব্যবসা কী, কীভাবে এত টাকার মালিক, সাধারণ জীবন-যাপন, স্ত্রীরাও অনেক সম্পদের মালিক, বৈধ-অবৈধ ব্যবসা কী, সন্ত্রাসী কর্মকা-ের সঙ্গে জড়িত নাকি যোগ্যতার প্রশ্নে কোনো আপস নেই এমন প্রার্থীরাও নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছেন। তবে প্রতিটি ওয়ার্ডেই শেষ মুহূর্তের প্রচারণাসহ নানাভাবে কাউন্সিলর প্রার্থীদের হলফনামার বিষয়টিও আলোচনা-সমালোচনা চলছে বলে তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা জানান।

আরও পড়ুন :  আওয়ামী লীগ নেতা তারেক সোলেমান আর নেই

চট্টগ্রাম নির্বাচন কমিশন ও দলীয় সূত্রে জানা গেছে, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) নির্বাচনে ২০ নম্বর দেওয়ানবাজার ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, চসিক নির্বাচনের ৩০ নম্বর দক্ষিণ হালিশহর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী জিয়াউল হক সুমন, ৩৩ নম্বর ফিরিঙ্গীবাজার ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিপ্লব, ২৫ নম্বর রামপুরা ওয়ার্ডের আবদুস সবুর লিটন-চারজনই কাউন্সিলর পদপ্রার্থী। এর মধ্যে লিটন ছাড়া অন্য তিনজনই বর্তমান কাউন্সিলর। তারা সবাই ধন-সম্পদে ঐশ্বর্যশালী। শুধু তারাই নন, তাদের স্ত্রীরাও ধনবান। অথচ স্ত্রীদের আয়-উপার্জন নেই। স্বামীর ধনেই ধন্য কাউন্সিলর প্রার্থীর স্ত্রীরা। করোনা পরিস্থিতির কারণে স্থগিত হওয়া ২৯ মার্চ চসিক নির্বাচন উপলক্ষে দাখিল করা হলফনামা পর্যালোচনা করে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

পরে ২৭ জানুয়ারি চসিক নির্বাচনের দিন-তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে। চসিক নির্বাচনের ৩০ নম্বর দক্ষিণ হালিশহর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী জিয়াউল হক সমুন বলেন, কমিশনে জমা দেওয়া হলফনামায় অনেকে তথ্য গোপন করলেও আমি করিনি। বছরে কোটি টাকা আয় হলেও তা বৈধ পথে। প্রতি বছর আয়করও দেই। বৈধভাবে ব্যবসা করেই কোটিপতি হয়েছি। তিনি বলেন, আমার স্ত্রী রিয়েল এস্টেট কোম্পানির সঙ্গে জড়িত থাকায় তারও রয়েছে নগদ টাকা ও সম্পদ। অনিয়ম, দুর্নীতির বিষয়ে আমিও জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছি এলাকায়।

নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, চসিকের নির্বাচনে মেয়র প্রার্থীসহ ২৩৬ জন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন। এদের মধ্যে মেয়র পদে সাতজন, সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ৫৭ জন এবং সাধারণ কাউন্সিলর পদে (পুরুষ) ১৭২ জন কাউন্সিলর প্রার্থী অংশগ্রহণ করছেন।

সূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন

আর/০৮:১৪/১৯ জানুয়ারি

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: