ভালোবেসে বিয়ে, ১৬ দিনেই লাশ হলো স্বর্ণা

কুমিল্লা, ০৭ মে– ভালোবেসে বিয়ে করেছিলেন পছন্দের মানুষ কামরুল হাসানকে। অনেক স্বপ্ন ছিলো স্বামীর বাড়ি গিয়ে সংসারী হবে স্বর্ণা (১৯)। কিন্তু বিয়ের ১৬ দিনের মাথায় লাশ হতে হলো তাকে।

বৃহস্পতিবার ভোরে নিজ বাড়ির আঙিনায় গলায় ফাঁস দেওয়া অবস্থায় স্বর্ণার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। কুমিল্লার দেবীদ্বার উপজেলার ধামতী উত্তর পাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

স্বর্ণা আক্তার মীম ধামতী উত্তর পাড়া মৃত মো. সামসুল হক মেয়ে। সে বছর ধামতী হাবিবুর রহমান উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষা দেয়ার কথা ছিলো।

স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা যায়, স্বর্ণা ভালোবেসে গত ১৯ এপ্রিল কুমিল্লা কোর্টে বিয়ে করেন একই গ্রামের রহিম মাস্টারের ছেলে কামরুলকে। কিন্তু তাদের বিয়ে মেনে নিতে পারেনি কামরুলের বাবা আ. রহিম মাস্টার। এতে বিপত্তি বাঁধে কামরুল ও স্বর্ণার নতুন সংসারে। বিয়ের পর থেকেই স্বর্ণা দেবীদ্বারে তার বড় বোনের বাসায় থাকতেন। গত শনিবার স্বর্ণা দেবীদ্বারের বোনের বাড়ি থেকে ধামতী বাবার বাড়িতে আসেন। বৃহস্পতিবার ভোরে সেহেরির সময়ে বড় বোন শিল্পী স্বর্ণার মোবাইল বন্ধ পেয়ে পাশের ঘরের চাচীকে ফোন করে স্বর্ণার খোঁজ নেন। পরে স্বর্ণার চাচা ও চাচী স্বর্ণাকে ডাকাডাকি করে ঘরে না পেয়ে ঘরের পিছনের দরজা খোলা দেখতে পান। বাহিরে পুকুর পাড়ে একটি গাছের সাথে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় স্বর্ণার লাশ দেখতে পান বাড়ির লোকজন।

এ বিষয়ে স্বর্ণার স্বামী মো. কামরুল হাসান বলেন, রাত ১২টায় আমি ফোনে কথা বলেছি, ভোর রাতে গলায় ফাঁস দিয়ে তার মৃত্যুর সংবাদে পেয়ে আমি ছুটে যাই, আমার স্ত্রী আত্মহত্যা করতে পারে না, তাকে কেউ হত্যা করে গাছে ঝুলিয়ে রেখেছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

দেবীদ্বার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আরিফুর রহমান বলেন, সংবাদ পেয়ে একটি গাছ থেকে গলায় ফাঁস দেয়া অবস্থায় স্বর্ণার লাশ উদ্ধারের পর ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। তবে এটি ময়নাতদন্তের পর রির্পোট পেলেই সঠিক রহস্য জানা যাবে।

সূত্র : বাংলাদেশ জার্নাল
এম এন / ০৭ মে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: