কম্পিউটার চুরির তদন্ত থেকে হঠাৎ এক সদস্যকে অব্যাহতি

গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) ৪৯টি কম্পিউটার চুরির ঘটনায় গঠিত সাত সদস্যের তদন্ত কমিটির এক সদস্যকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। অব্যাহতি পাওয়া ওই সদস্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী রেজিস্টার মো. নজরুল ইসলাম হিরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্টার অধ্যাপক ড. মো. নূরউদ্দিন আহমেদ স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে বিষয়টি জানানো হয়। চিঠিতে বলা হয়, তদন্ত কমিটির কার্যক্রম সকল প্রশ্নের ঊর্ধ্বে রাখতে অপর ছয় সদস্যের মতামতের ভিত্তিতে মো. নজরুল ইসলামকে অব্যাহতি দেওয়া হলো।

কম্পিউটার চুরির দায়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাসন বিভাগের শিক্ষার্থী মাসরুল ইসলাম পনি শরীফকে একটি রেস্টুরেন্ট থেকে গ্রেফতার করা হয়। জানা যায়, গ্রেফতারকৃত শিক্ষার্থী পনির সঙ্গে ওই সময়ে আলাপ করছিলেন সহকারী রেজিস্টার মো. নজরুল ইসলাম। এ ঘটনার পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা প্রশ্ন তোলে ওই সহকারী রেজিস্টারের বিরুদ্ধে।

তবে সহকারী রেজিস্ট্রার মো. নজরুল ইসলাম হিরার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে তিনি দাবি করে তিনি বলেন, তদন্ত কমিটির একজন সদস্য হিসেবে আমি সব সময় প্রশাসন ও পুলিশকে সহযোগিতা করেছি। আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ এসেছে সেটি মিথ্যা।

এবিষয়ে গোপালগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মোহাম্মদ ছানোয়ার হোসেন বলেন, এটি তদন্তাধীন বিষয় হওয়ায় আমরা এখন বিস্তারিত কিছু বলবো না। তবে আশা করছি খুব শীঘ্রই প্রকৃত ঘটনা উদঘাটন হবে।

প্রসঙ্গত, গত ৯ আগস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার চুরির বিষয়টি প্রশাসনের নজরে আসে। পরদিন ১০ আগস্ট এ বিষয়ে গোপালগঞ্জ সদর থানায় একটি মামলা করা হয়। পাশাপাশি আইন অনুষদের ডিন মো. আবদুল কুদ্দুস মিয়াকে সভাপতি করে ৭ সদস্যের একটি তদন্ত দল গঠন করা হয়। ১৩ আগস্ট রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাজধানীর মহাখালীতে অবস্থিত হোটেল ক্রিস্টাল ইনে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৩৪টি কম্পিউটার উদ্ধারসহ দুই জনকে গ্রেফতার করে। ধারাবাহিক অভিযানে বশেমুরবিপ্রবির এক শিক্ষার্থীসহ আরো পাঁচ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে গ্রেফতারকৃতরা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

ইত্তেফাক/ইউবি

সূত্রঃ দৈনিক ইত্তেফাক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: