হাঁড়িভাঙা আমের বাগান সবার নজর কাড়ছে

সারি সারি আমের বাগান। থোকায় থোকায় শোভা পাচ্ছে হাঁড়িভাঙা আম। যদিও প্রকৃতিতে চলছে ঝড়বৃষ্টির দুর্যোগ। তবুও আমচাষিরা আম নিয়ে স্বপ্ন বুনছেন।

রংপুরের বদরগঞ্জের রামনাথপুর ইউনিয়নে এরকম বাগান রয়েছে প্রায় শতাধিক। ঐ ইউনিয়নের ধাপপাড়ার দুই ভাই নূরুন্নবী সরদার রাজু ও নাজমুল হক সরদার সাগর পৈতৃক ৬০ শতাংশ জমিতে গড়ে তুলেছেন হাঁড়িভাঙা আমের বাগান। আমের চারা সংগ্রহ করেন স্থানীয় কেয়া নার্সারি থেকে। গেল বছর থেকে এই বাগানে আম আসতে শুরু করেছে। এবছরও প্রচুর আম আছে গাছে। কিন্তু ঝড়বৃষ্টির কারণে ২০ শতাংশ আম ঝরে পড়েছে।

বাগানের প্রায় ৭০০ গাছে প্রায় ৩ লাখ টাকা আয় করার স্বপ্ন দেখছেন তারা। তারা জানান, বাগানের আম নামতে দেরি আছে কিন্তু এরই মধ্যে দূর-দূরান্ত থেকে আমের পাইকাররা আসতে শুরু করেছেন। পাইকাররা এসব আম কিনে ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে পাঠাবেন।

হাঁড়িভাঙা আম অত্যন্ত সুমিষ্ট। আঁশ নেই বললেই চলে। মধুমাস জ্যৈষ্ঠের শেষ থেকে এই আম পাকতে শুরু করে আষাঢ়ের মাঝামাঝি পর্যন্ত তা পাওয়া যায়। ‘হাঁড়িভাঙা’ আম দেখতে সাধারণত কিছুটা লম্বাটেসহ গোলাকৃতির এবং কালচে সবুজ রঙের। পাকলে কিছুটা লালচে রং ধারণ করে। প্রতিটি আমের ওজন ২০০ গ্রাম থেকে ৪০০ গ্রাম পর্যন্ত হয়ে থাকে।

এলাকার উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা আফজাল হোসেন জানান, এলাকার প্রতিটি বাগান তৈরিতে মাটি নির্বাচন থেকে পরিচর্যা পর্যন্ত কৃষি বিভাগ পরামর্শ দিয়ে আসছেন। এবছর কয়েক দফা ঝড় আমের প্রচুর ক্ষতি হয়েছে। যেটুকু আম রয়েছে দাম পেলে আমচাষিরা ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারবেন বলে জানান তিনি।

ইত্তেফাক/জেডএইচ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: