ব্যাংকে আমানতে খরচ কমল

ঢাকা, ১২ এপ্রিল – এবার ক্ষুদ্র আমানতকারীদের সুবিধা দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তাদের হিসাব রক্ষণাবেক্ষণ খরচ অর্ধেক কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। এর ফলে যাদের হিসাবে গড়ে ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত জমা থাকে, এমন আমানতকারীদের থেকে বছরে একবার মাশুল আদায় করতে পারবে ব্যাংকগুলো। এতে ২ লাখ থেকে ১০ লাখ পর্যন্ত আমানতে সর্বোচ্চ মাশুল হবে ২৫০ টাকা। এ সুবিধা শুধু চলতি বছরের জন্য প্রযোজ্য হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর আবু ফরাহ মো. নাছের।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাসের সংক্রমণজনিত কারণে সৃষ্ট অর্থনৈতিক পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে ক্ষুদ্র আমানতকারীদের আর্থিক প্রণোদনা প্রদান ও আমানত বৃদ্ধির জন্য উৎসাহিত করা হচ্ছে। এ জন্য ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত গড় আমানত স্থিতিবিশিষ্ট সঞ্চয়ী হিসাবের বিপরীতে বছরে দুবারের পরিবর্তে একবার হিসাব রক্ষণাবেক্ষণ মাশুল আদায় করার জন্য ব্যাংকগুলোকে নির্দেশনা প্রদান করা যাচ্ছে।

আরও পড়ুন : কঠোর লকডাউনে খোলা থাকবে শিল্প কারখানা

এতে আরো বলা হয়, এর আগে ব্যাংক খাতে আমানত বৃদ্ধি এবং ক্ষুদ্র আমানতকারীদের ব্যাংকমুখী করার লক্ষ্যে গড় আমানত স্থিতির ওপর ভিত্তি করে সঞ্চয়ী হিসাবের বিপরীতে রক্ষণাবেক্ষণ মাশুল পুনর্নির্ধারণ করে দেওয়া হয়। উক্ত পুনর্নির্ধারিত হার অনুযায়ী ব্যাংকগুলো বছরে দুবার একটি হিসাব হতে মাশুল আদায় করতে পারে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আগের নির্দেশনা অনুযায়ী, একটি হিসাব থেকে ৬ মাসের জন্য কোনোভাবেই ৩০০ টাকার বেশি মাশুল আদায় করা যাবে না। অর্থাৎ বছরে নেওয়া যাবে সর্বোচ্চ ৬০০ টাকা। আগে সর্বোচ্চ ২৫ হাজার টাকা গড় আমানতের ক্ষেত্রে মাশুল নির্ধারিত ছিল। সঞ্চয়ী হিসাবে গড় আমানত ১০ হাজার টাকার মধ্যে থাকলে হিসাব পরিচালনার জন্য ব্যাংক কোনো মাশুল নিতে পারবে না। আর গড় আমানত ১০ হাজার থেকে ২৫ হাজার টাকার মধ্যে থাকলে প্রতি ৬ মাসে ১০০ টাকা মাশুল নেওয়া যাবে।

সূত্র : বাংলাদেশ জার্নাল
এন এইচ, ১২ এপ্রিল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: