সুশান্তের মৃত্যু: হু হু করে কমছে বলিউড প্রভাবশালীদের ফলোয়ার

মুখে রূপোর চামচ নিয়ে জন্মেইছিলেন। দর্শকও ভালবাসা উজাড় করে দিয়েছিল তাদের। তাই ছবিতে গল্পের গরু গাছে উঠলেও, থিয়েটারে হুমড়ি খেয়ে পড়তেন আমজনতা। স্বজনপোষণ নিয়ে চলে আসা বিতর্কও এত দিন তাতে বিন্দুমাত্র চিড় ধরাতে পারেনি। কিন্তু সুশান্ত সিংহ রাজপুতের মৃত্যু সব হিসেব উল্টে দিল। রাঘব বোয়ালদের মাঝে থেকে নিজের পরিচিতি গড়ে তোলা, চূড়ান্ত অবসাদগ্রস্ত হয়েও মুখে হাসি ধরে রাখা এবং শেষমেশ নিজেকে শেষ করে দেওয়া… নাড়িয়ে দিয়েছে গোটা দেশকে। আর তাতেই বলিউডের ‘প্রিভিলেজ ক্লাব’-এর উপর রাগ গিয়ে পড়েছে সাধারণ মানুষের।

সোশ্যাল মিডিয়াতেই পছন্দের তারকাদের বয়কট করতে শুরু করেছেন তাঁরা। টুইটার এবং ইনস্টাগ্রামে তারকাদের আনফলো করেছেন অনেকইউজার। তাতে গত কয়েক দিনে লক্ষ লক্ষ অনুরাগী হারিয়েছেন কর্ণ জোহর, আলিয়া ভট্ট, সোনম কপুর এবং সালমান খানের মতো তারকারা।

এই তালিকায় প্রথমেই নাম উঠে আসবে পরিচালক-প্রযোজক তথা অভিনেতা এবং সঞ্চালক করণ জোহরের। দীর্ঘ দিন ধরেই স্বজনপোষণের অভিযোগ। সুশান্তের মৃত্যুর জন্য বলিউডের দিকে যখন আঙুল উঠতে শুরু করেছে, সেই সময় সর্বপ্রথম তাঁর আচরণ নিয়েই প্রশ্ন ওঠে। তবে পরিস্থিতি এতটা খারাপ হবে তা বোধ হয় আঁচ করতে পারেননি করণ। এতদিন ইনস্টাগ্রামে ১ কোটি ১০ লক্ষের বেশি ফলোয়ার ছিল করণের। গত কয়েক দিনে তা ১ কোটি ৫ লক্ষে এসে ঠেকেছে। ৫ লক্ষের বেশি মানুষ আনফলো করেছেন তাঁকে। করণ নিজেও বহু তারকাকে আনফলো করেছেন। এই মুহূর্তে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, অমিতাভ বচ্চন, অক্ষয় কুমারসহ হাতে গোনা কয়েক জনকেই ফলো করছেন তিনি।

এতদিন ইনস্টাগ্রামে ৪ কোটি ৮৪ লক্ষ ফলোয়ার ছিল আলিয়া ভাটের। সুশান্তের মৃত্যুতে তিনি যখন শোকপ্রকাশ করেন, তখন অনেকেই তাঁকে সমর্থন করেন। কিন্তু তারপরেই স্বজনপোষণ নিয়ে বিতর্ক শুরু হলে, আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হন আলিয়া। বিখ্যাত বাবার মেয়ে বলেই তিনি বলিউডে রাজত্ব করছেন, আর সুশান্ত বাইরে থেকে এসেছিলেন বলেই তাঁকে অকালে চলে যেতে হল, এমন অভিযোগ উঠতে শুরু করে। আলিয়ার শোকবার্তা নিয়েও কাটাছেঁড়া শুরু হয়। বলা হয়, সুশান্তের মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করলেও, এক সময় কর্ণ জোহরের সঙ্গে মিলে টক শো-এ সুশান্তকে ধর্তব্যের মধ্যেই আনতে চাননি তিনি। সুশান্তকে নিয়ে কর্ণ জোহররে সঙ্গে তাঁর কথোপকথনের একটি ভিডিয়োও ছড়িয়ে পড়ে। তাতেই গত কয়েক দিনে ১০ লক্ষের বেশি ইউজার আলিয়াকে আনফলো করেছেন। এই মুহূর্তে ইনস্টাগ্রামে ৪ কোটি ৭৪ লক্ষ ফলোয়ার রয়েছে তাঁর।

সোশ্যাল মিডিয়ায় বরাবর সক্রিয় সোনাম কাপুর। সুশান্তকে চেনেন না বলে একবার ‘কফি উইথ করণ’-এ মন্তব্য করেছিলেন তিনি। তার পরেও সুশান্তের মৃত্যুতে তিনি শোকপ্রকাশ করেন ইনস্টাগ্রামে। লেখেন, ‘‘তোমার আত্মা শান্তি পাক।’’ সে নিয়ে সমালোচনার মুখে না পড়লেও, টুইটারে সুশান্তকে নিয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে ঝামেলায় জড়িয়ে পড়েন সোনম। সুশান্তের মৃত্যুর জন্য তাঁর ঘনিষ্ঠ বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তী এবং বলিউডের ভূমিকা নিয়ে যখন কাটাছেঁড়া চলছে, সেই সময় টুইটারে এর তীব্র প্রতিবাদ করেন সোনম। কারও মৃত্যুর জন্য তাঁর সহকর্মী বা প্রেমিকাকে দোষ দেওয়া উচিত নয় বলে মন্তব্য করেন তিনি। তাতেই ফুঁসে ওঠেন নেটাগরিকরা। জানিয়ে দেন, নিজের যোগ্যতায় নয়, অনিল কপূরের মেয়ে বলেই বলিউডে জায়গা পেয়েছেন সোনম। তার পরেই ইনস্টাগ্রামে তাঁর ফলোয়ার সংখ্যা ২ কোটি ৯০ লক্ষ থেকে কমে ২ কোটি ৮৮ লক্ষে এসে দাঁড়ায়।

তারকার ছেলেমেয়ে হোক বা বহিরাগত, সলমনের নজরে পড়লে ভাগ্য খুলে যাবে বলেই প্রচলিত ধারণা বলিউডের। সেই সালমান খানের জনপ্রিয়তাকেও একধাক্কায় অনেকটা কমিয়ে দিয়েছে সুশান্ত সিংহ রাজপুতের মৃত্যু। সুশান্তের মৃত্যুতে সোশ্যাল মিডিয়ায় একলাইনের শোকবার্তা লেখেন সালমান। তা নিয়ে বিতর্ক না হলেও, বলিউডে তাঁর ভূমিকা নিয়ে কাটাছেঁড়া হতে সময় লাগেনি। সুশান্ত যাতে বলিউডে কাজ না পান, তাতে সালমানের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল বলে ছড়িয়ে প্রথমে ছড়িয়ে পড়ে সোশ্যাল মিডিয়ায়। তার পর জিয়া খানের মৃত্যুর তদন্তে নাক গলানোর অভিযোগও ওঠে তাঁর বিরুদ্ধে। জিয়া খানের মা অভিযোগ করেন, আদিত্য পাঞ্চোলির ছেলে সূর্য পাঞ্চোলিকে বাঁচাতে তদন্তে প্রভাব খাটিয়েছিলেন সালমান।

সেই সঙ্গে সালমান এবং তাঁর পরিবারের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ নিয়ে এগিয়ে আসেন পরিচালক অভিনব কাশ্যপও। তিনি দাবি করেন, ‘দাবং’-এর পর তাঁর কাজে নাক গলাতে শুরু করে খান পরিবার। তাতে আপত্তি করায় তাঁকে কোণঠাসা করে দেওয়া হয়। এ সবের জেরে গত এক সপ্তাহে ইনস্টাগ্রামে ৫ লক্ষের বেশি ফলোয়ার হারিয়েছেন সালমান। আগে ৩ কোটি ৪০ লক্ষের বেশি ফলোয়ার ছিল তাঁর। এখন তা ৩ কোটি ৩৫ লক্ষে এসে ঠেকেছে।
তবে সুশান্তের মৃত্যু নিয়ে কাটাছেঁড়া চলাকালীন কর্ণ-আলিয়ারা যেমন অনুরাগী হারিয়েছেন, তেমনই একধাক্কায় জনপ্রিয়তা বেড়ে গিয়েছে কঙ্গনা রানাউত এবং মনোজ বাজপেয়ীর মতো অভিনেতাদের। সুশান্তের মৃত্যুতে সরাসরি বলিউডকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছিলেন কঙ্গনা। বলিউড সুশান্তকে প্রাপ্য স্বীকৃতি দেয়নি বলে অভিযোগ করেছিলেন। এমনকি সুশান্ত আত্মহত্যা করেননি, তাঁকে খুন করা হয়েছে বলেও দাবি করেন কঙ্গনা।

প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে এ ভাবে মুখ খোলায় রাতারাতি কঙ্গনার জনপ্রিয়তা অনেকটাই বেড়ে গিয়েছে। এত দিন ইনস্টাগ্রামে কঙ্গনার ফলোয়ারের সংখ্যা ছিল ৪০ লক্ষের আশেপাশে। গত এক সপ্তাহে তা ৫২ লক্ষে এসে ঠেকেছে। তবে নেটাগরিকদের একাংশের অভিযোগ, প্রচার পেতেই সুশান্তকে নিয়ে সরব হয়েছেন কঙ্গনা। যদিও তাঁর টিম এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

ইত্তেফাক/বিএএফ

সূত্রঃ দৈনিক ইত্তেফাক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: