ব্লাসফেমি আইনে আন্তর্জাতিক প্রতিশ্রুতি ভাঙছে পাকিস্তান

পাকিস্তানে ব্লাসফেমি আইনের অপব্যবহার এখনো বেড়েই চলেছে। যা নিয়ে উদ্বেগ জানাচ্ছেন দেশটির মানবাধিকার কর্মীরা। তারা এগুলো নিয়ে ক্রমাগত বিশ্ব সম্প্রদায়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করে যাচ্ছে।

মানবাধিকার গ্রুপগুলোর বিভিন্ন রিপোর্টের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা এএনআইয়ের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ১৯৮৭ সাল থেকে আজ পর্যন্ত পাকিস্তানে প্রায় ১৬০০ ব্লাসফেমি কেস নিবন্ধন করা হয়েছে। যেগুলোর অধিকাংশই ধর্মীয় সংখ্যালঘু হিন্দু, খ্রিষ্টান, শিয়া ও আহমেদিয়া মুসলিমদের বিরুদ্ধে। এসবের মধ্যে বৃহৎ একটি সংখ্যা এখনো বিচারের অপেক্ষায় রয়েছে।

মুলতানের বাহাউদ্দিন যাকারিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যাপক জুনায়েদ হাফিজ বলেন, তিনি ব্লাসফেমি মামলায় অভিযুক্ত, কিন্তু কখনোই এ ধরনের কোনো অপরাধ করেননি। ওয়াজিহ-উল-হাসান নামে আরও এক ব্যক্তি ১৮ বছর কারাভোগ করেছেন। কিন্তু পরবর্তীতে নিরাপরাধ প্রমাণিত হন এবং ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে ছাড়া পেয়েছেন।

সৃষ্টিকর্তার (আল্লাহ) প্রতি অবমাননা, অবজ্ঞা বা অশ্রদ্ধা বন্ধ করতে ব্লাসফেমি আইন চালু করে পাকিস্তান। কিন্তু দেশটিতে অধিকাংশ সময় আইনটির অপব্যবহার হয়ে আসছে। আর এসব হচ্ছে কেবল সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধেই।

ইত্তেফাক/টিএ

সূত্রঃ দৈনিক ইত্তেফাক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: