‘ধর্ষণ ঠেকাতে না পারলে,তা উপভোগ করা উচিত’:বিরূপ মন্তব্যের জন্য ক্ষমা চাইলেন কংগ্রেস নেতা

নয়াদিল্লি, ১৭ ডিসেম্বর – ধর্ষণ নিয়ে কৌতুক করার জন্য ক্ষমা চেয়েছেন ভারতের কর্ণাটক রাজ্যের এক বিরোধী দলীয় বিধায়ক। রাজ্য সভায় বিশৃঙ্খলা নিয়ে স্পিকারের মন্তব্যের জবাবে কংগ্রেস নেতা কেআর রমেশ কুমার বলেছিলেন, যখন ধর্ষণ এড়ানো সম্ভব নয়, তখন শুয়ে পড়ো এবং উপভোগ করো। এই মন্তব্য ঘিরে নিন্দা ও বিতর্কের ঝড় উঠলে শুক্রবার তিনি ক্ষমা চান।

রাজ্য সভায় শুক্রবার রমেশ কুমার বলেছেন, তার মন্তব্যে যারা আঘাত পেয়েছেন তাদের কাছে খোলা মনে ক্ষমা চাইছেন তিনি। বলেন, নারীদের অপমান বা রাজ্য সভার সম্মানহানি করা কিংবা এটি কৌতুকের কোনও ইচ্ছা ছিল না। আমার অন্য কোনও উদ্দেশ্য নেই।

বৃহস্পতিবার স্পিকার কাগেরি আইনপ্রণেতাদের নিয়ন্ত্রণ করতে না পারায় অসহায়ত্ব প্রকাশ করার পর এই বিতর্কিত মন্তব্য করেছিলেন রমেশ কুমার। স্পিকার বলেছিলেন, রমেশ কুমার আপনি জানেন, আমি এখন পরিস্থিতি উপভোগ করার অনুভূতি বোধ করছি। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা আমি বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমি তাদের কথা বলতে দেব।

রমেশ কুমারের ধর্ষণ নিয়ে মন্তব্যকে ক্ষমতাসীন ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)-এর নারী আইনপ্রণেতা এবং তার দল কংগ্রেস ‘সংবেদনশূন্য’ এবং এর বিরুদ্ধে বিক্ষোভের হুমকি দিয়েছে।

এই মন্তব্যে হাসার জন্য স্পিকার কাগেরির সমালোচনা করেছেন বিজেপির বিধায়ক পূর্ণিমা শ্রিনিবাস। তিনি বলেন, আমরা যখন রাজ্য সভায় আসি তখন আমরা রমেশ কুমারের সূক্ষ্ণ দৃষ্টি দেখি। নারীদের প্রতি তার কোনও শ্রদ্ধা নেই বলেই মনে হয়।

কংগ্রেসের আইনপ্রণেতা রূপাকালা এম. বলেন, যৌন হামলার শিকার নারীকে সারাজীবনের জন্য ট্রমায় ভুগতে হয়। অন্য কিছুর কথা বলতে এটিকে টেনে আনা ভুল।

শুক্রবার স্পিকার কাগেরি এই বিষয়টি নিয়ে আলোচনার জন্য নারী আইনপ্রণেতাদের আহ্বান প্রত্যাখ্যান করেছেন। তিনি জানান, কুমার ক্ষমা চেয়েছেন। বলেন, আমরা সবাই নারীদের শ্রদ্ধা করি এবং তাদের সম্মানহানি যাতে না হয় সেই চেষ্টায় সচেষ্ট থাকি। আমি মনে করি না বিষয়টি আবারও তুলে ধরা এবং বিতর্ক তৈরির কোনও প্রয়োজনীয়তা আছে।

সূত্র: বাংলা ট্রিবিউন
এম ইউ/১৭ ডিসেম্বর ২০২১

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: