নিখোঁজ বিমানের রহস্য আর জানা যাবে না

this is caption

আর মাত্র কয়েক দিন, কয়েক ঘণ্টা৷ তারপর আর কোনো দিনও জানা যাবে না, ঠিক কি কারণে মাঝ আকাশ থেকে উধাও হয়েছিল এমএইচ ৩৭০ বিমান৷

কি কারণে গতিপথ পরিবর্তন করেছিল মালয়েশিয়ার বিমানটি। কেন হারিয়ে গেলেন ২৩৯জন যাত্রী এবং ক্রু সদস্যরা।

বিমান উদ্ধার হলেও এই সমস্ত প্রশ্নের উত্তর আর কোনো দিনই জানতে পারবে না বিশ্ববাসী৷

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যতই দিন যাচ্ছে ততই ক্ষীণ হয়ে আসছে আশা-ভরসা৷

এখনো যতটুকু আশা আছে সেটি আছে বিমানটির ব্ল্যাক বক্সটি এখনো হয়ত সচল রয়েছে। কারণ বিমানটি ধ্বংস হয়ে গেলেও, এর ব্ল্যাক বক্সটির মেয়াদ শেষ হতে বেশ সময় লাগে।

কিন্তু সময়ের সাথে সাথে বিমানের ব্ল্যাক বক্স বা ফ্ল্যাইটের রেকর্ডারের মেয়াদও ফুরিয়ে যাচ্ছে৷

তারা জানাচ্ছেন, কোনও বিমান ধ্বংস হয়ে গেলেও, তার ব্ল্যাক বক্স ৩০দিন পর্যন্ত সিগন্যাল পাঠাতে পারে৷ ব্ল্যাক বক্সটি ওই সময় পর্যন্ত জীবিত থাকে৷ থাকে অক্ষত৷ যাতে বিমানের সমস্ত তথ্য সংরক্ষিত থাকে৷ কিন্তু, ব্ল্যাক বক্স অচল হয়ে গেলে, সমস্ত তথ্যই মুছে যায়৷ 

৮ মার্চ থেকে মালয়েশিয়ান বিমান বোয়িং ৭৭৭ নিখোঁজ। এখন পর্যন্ত কোনো হদিসই পাওয়া যাচ্ছে না। একমাস হতে আর মাত্র তিন-চার দিন আছে। এরপর বিমানের ব্ল্যাক বক্স উদ্ধার না হলে, আর কোনো দিনও জানা যাবে না বিমান নিখোঁজের রহস্য।

অন্যদিকে, ২৩৯জন যাত্রী নিয়ে উধাও হয়ে যাওয়া মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের এমএইচ ৩৭০ সন্ধানের জন্য অস্ট্রেলিয়ার পার্থের সামরিক ঘাঁটিতে একটি অনুসন্ধানকেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে৷

এই অপারেশনের নাম  দেওয়া হয়েছে ‘মানব ইতিহাসে সবচেয়ে জটিল’ অনুসন্ধান৷

বৃহস্পতিবার এই অনুসন্ধান কেন্দ্রটি পরিদর্শন করেন মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজ্জাক৷

পরে তিনি সংবাদমাধ্যমকে বলেন, “নিখোঁজ বিমান সংক্রান্ত সুনির্দিষ্ট উত্তর না পাওয়া পর্যন্ত আমরা থামব না।”

তিনি মনে করেন, বোয়িং ৭৭৭ বিমানটি ভারত মহাসাগরে বিধ্বস্ত হয়েছে। নিখোঁজ ওই বিমানের রহস্য আর কোনো দিনই হয়ত জানা যাবে না বলে মনে করা  হচ্ছে৷

তবে নাজিব দৃঢ়তার সাথে বলেন, “আমরা এর রহস্য উদঘাটন করতে চাই এবং নিখোঁজ যাত্রীদের পরিবারকে তা জানাতে চাই।”

শাতৈ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

%d bloggers like this: