ফাহিম হত্যাকাণ্ডে অভিযুক্ত ব্যক্তিগত সহকারী, করাত দিয়ে টুকরা করেন লাশ  

বাংলাদেশের জনপ্রিয় রাইড শেয়ারিং অ্যাপ ‘পাঠাও’-এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ফাহিম সালেহকে (৩৩) হত্যাকাণ্ডের দায়ে অভিযুক্ত হয়েছেন তার ব্যক্তিগত সহকারী টাইরেস ডেভন হাসপিল (২১)। নিউ ইয়র্ক পুলিশ শুক্রবার এই তথ্য জানিয়েছে।

এর আগে পুলিশ জানায়, শুক্রবার সকালে টাইরেস হাসপিলকে তারা গ্রেফতার করেছেন।

পরবর্তীতে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়, টাইরেস হাসপিলের বিরুদ্ধে ফাহিম সালেহকে ইলেকট্রিক স্টানগান (টেজার) দিয়ে দুর্বল করে, তাকে একাধিকবার ছুরিকাঘাতে হত্যা করার অভিযোগ আনা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ফাহিম সালেহের এক লাখ মার্কিন ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৮৫ লাখ) তার ব্যক্তিগত সহকারি টাইরেস ডেভন হাসপিল চুরি করেছেন এটা তিনি (ফাহিম সালেহ) জেনে যান।

তবে টাকা চুরির ঘটনা পুলিশকে অবহিত করেননি ফাহিম। তিনি চুরি করা অর্থ ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য তার সহকারীকে একটি পরিকল্পনা দেন। তবে তার সহকারী অর্থ ফেরত না দিয়ে তাকে হত্যা করার পথ বেঁছে নেন।

গত মঙ্গলবার নিউইয়র্ক সিটির লোয়ার ইস্ট ম্যানহাটনের বিলাসবহুল কনডোমিনিয়াম (অ্যাপার্টমেন্ট) থেকে ফাহিমের টুকরো করা লাশ উদ্ধার করে নিউইয়র্ক পুলিশ।

কর্মকর্তারা জানান, হত্যার পরের দিন মঙ্গলবার প্রমাণ মুছে ফেলতে প্ল্যাস্টিক ব্যাগে ভরে লাশ অন্য কোথাও ফেলে দেওয়া হতো। কিন্তু ফাহিমের এক কাজিন তার খোঁজে আসায় সে পরিকল্পনা ভেস্তে যায়। কলবেলের শব্দ পেয়ে হত্যাকারী জরুরি বহির্গমণ সিঁড়ি দিয়ে বেরিয়ে গেছে।

নিউইয়র্ক পুলিশ বিভাগের গোয়েন্দা প্রধান রোডনি হ্যারিসন সাংবাদিকদের বলেন, ফাহিমের কাজিন রুমে ঢুকে দেখতে পায় ফাহিমের বিচ্ছিন্ন মাথা, হাত, পা।

এছাড়া তিনি জানান, সোমবার দুপুর ১ টা ৪৫ মিনিট নাগাদ ফাহিমকে হত্যা করা হয়।

এদিকে টাইরেস ডেভন হাসপিলের এখন পর্যন্ত কোন আইনজীবী নিযুক্ত হয়েছেন কিনা তা জানা যায়নি। সিএনএন, বিবিসি, নিউ ইয়র্ক পোস্ট, নিউ ইয়র্ক টাইমস, ডেইলি মেইল।

ইত্তেফাক/এসআর

সূত্রঃ দৈনিক ইত্তেফাক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: