রুয়ান্ডা গণহত্যা: সন্দেহভাজন ব্যক্তির তদন্ত শুরু করেছে ফ্রান্স

রুয়ান্ডার শীর্ষস্থানীয় সামরিক কর্মকর্তা অ্যালোস নটিভিরাগাবোর বিরুদ্ধে ১৯৯৪ সালের গণহত্যা ও মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত থাকার বিষয়ে তদন্ত শুরু করেছে ফ্রান্স । ঔ গণহত্যায় আট লক্ষাধিক লোক নিহত হয়েছে বলে ধারনা করা হচ্ছে।

সন্ত্রাসবিরোধী প্রসিকিউটগন শনিবার এএফপিকে জানান, নাটিভিরাগাবো প্যারিসের প্রায় ১০০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে অরলেন্স শহরের উপকণ্ঠে লুকিয়ে ছিলেন। সেখানে তাকে খুঁজে পাওয়ার পর প্রাথমিক তদন্ত শুরু করা হয়েছে।

ফরাসী তদন্ত সংবাদমাধ্যম মিডিয়া পার্ট গণহত্যার অন্যতম রূপকার হিসেবে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল (আইসিটিআর) দ্বারা চিহ্নিত রুয়ান্ডার এই সাবেক গুপ্তচর প্রধান নাটিভিরাগাবোকের সন্ধান পায়।

প্যারিসের প্রান্তে আরেক সন্দেহভাজন গণহত্যাকারী ফেলিচিয়েন কাবুগাকে গ্রেফতার করার দু’মাস পরে নটিভিরাগাবোর সন্ধানের বিষয়টি প্রকাশ পায়। ২৫ বছর ধরে বেশ কয়েকটি দেশে পুলিশকে এড়িয়ে যাওয়া

কাবুগার বিরুদ্ধে গণহত্যার জন্য অর্থ ব্যয়ের অভিযোগ রয়েছে। ফ্রান্সে কবুগার বিচারের জন্য বলা হয়েছে। তবে তার দুর্বল স্বাস্থ্য ও আফ্রিকায় জাতিসংঘের আদালতে তার বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের দাবির প্রেক্ষিতে সম্ভবত তাকে রুয়ান্ডা কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

ফরাসী তদন্তকারীরা বর্তমানে কয়েক ডজন মামলার গুলি করে ভূপাতিত করা হয়। এতে কওে ওই বিমানে থাকা সব যাত্রী নিহত হন।

ইত্তেফাক/জেডএইচডি

সূত্রঃ দৈনিক ইত্তেফাক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: