বিশ্ববাসীকে পবিত্র ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা জানালেন আহমদীয়া খলীফা

বিশ্ববাসীকে পবিত্র ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা ও ঈদ মোবারক জানিয়েছেন আহমদী মুসলিম জামাতের বর্তমান খলীফা হযরত মির্যা মসরূর আহমদ ( আই.)। তিনি ৩১ জুলাই যুক্তরাজ্যে প্রদত্ত ঈদের খুতবা প্রদানকালে এ শুভেচ্ছা জানান। ইসলামাবাদ, টিলফোর্ডের মসজিদে মোবারকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে এবং আহমদীয়া খলীফা ঈদুল আজহার নামাজ পড়ান এবং নামাজ শেষে খুতবায় তিনি ঈদুল আজহার তাৎপর্য ও শিক্ষা তুলে ধরেন।

খুতবায় তিনি হজরত ইব্রাহিম (আ.), হজরত ইসমাইল (আ.) এবং হজরত হাজেরা (আ.)-এর অসাধারণ আত্মত্যাগের কথা তুলে ধরে বলেন, ‘কেবল লোক দেখানো আর আনন্দ উদযাপনের জন্য একজন মুমিন পশু কোরবানি করে থাকে না বরং এক অসাধারণ ত্যাগকে স্মরণ রেখে ঈদ উদযাপন করে। মুমিন কুরবানির যে প্রকৃত গুরুত্ব তাকে স্মরণ রাখে আর সে সেভাবেই স্মরণ রাখে যেভাবে স্মরণ রাখা উচিত। হজরত ইব্রাহিম (আ.) ও হজরত ইসমাইল (আ.) হাজার হাজার বছর পূর্বে আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে যে কোরবানি করেছিলেন তাকে স্মরণ করেই মুমিন কোরবানির ঈদ উদযাপন করে থাকে। আর তাদের দোয়ার বরকতে তাদের মাধ্যমে এমন এক সুমহান জাতি গঠন করেন যে জাতিসত্তায় খাতামান্নাবেঈন হজরত মুহাম্মদ (সা.)এর মত সর্বমহান ও সর্বশ্রেষ্ঠ নবীকে আল্লাহতায়ালা পাঠান। যাকে সমগ্র বিশ্বের জন্য রহমত স্বরূপ পাঠিয়েছেন আর তার মাধ্যমেই কেবল আল্লাহ পর্যন্ত পৌঁছা সম্ভব। হজরত হজেরা (আ.) এবং হজরত ইসমাইল (আ.) আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য এই বস্তু জগৎকে পরিত্যাগ করেছিলেন আর আল্লাহতায়ালা সারা পৃথিবীকে হজরত ইসমাইল (আ.) এর সন্তানদের চরণে এনে উপস্থিত করেছেন।

খুতবায় তিনি আরো বলেন-মহানবী (সা.)-এর মাধ্যমে আজ লক্ষ কোটি মানুষ হজ ও উমরা করে আর তাদের সেই ত্যাগকে স্মরণ করে। অর্থাৎ তাদের এই কোরবানিকে কেয়ামত পর্যন্ত একটা বিশেষ মর্যাদা দেয়া হয়েছে। কেননা আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য তারা এ জগৎকে পরিত্যাগ করেছিলেন। তাই তাদের এই ত্যাগ, এই কোরবানি কোন সাধারণ কোরবানি ছিল না। আসলে যে কাজ আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে করা হয় আল্লাহ তা গ্রহণ করেন।

খুতবায় তিনি আরো বলেন-শুধু কোরবানি করলেই হবে না বরং সেই আদর্শও আমাদের জীবনে বাস্তবায়ন করতে হবে, নিজেদের মাঝে উত্তম আদর্শ প্রতিষ্ঠা করতে হবে। প্রত্যেকে যখন সেই মান প্রতিষ্ঠা করবে এবং প্রত্যেক নারী যখন হজরত হাজেরার আদর্শ অনুকরণের চেষ্টা করবে আর প্রত্যেক যুবক যখন হজরত ইসমাইলের আদর্শ অনুসরণের চেষ্টা করবে তখন আল্লাহতায়ালার কৃপাবারীও বর্ষিত হবে। আর তখনই সত্যিকার কোরবানি হবে আর আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন হবে।

শেষে তিনি মুসলিম উম্মাহর ঐক্য-ভ্রাতৃত্ব এবং সঠিক চেতনাবোধ জাগ্রত হওয়ার জন্য এবং বর্তমান পরিস্থিতিতে বিশ্ববাসীর নিরাপত্তার জন্য সবার প্রতি দোয়ার আহ্বান জানান। সেই সাথে বিশ্ববাসীকে তিনি ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা ও ঈদ মোবারক জানান।

ইত্তেফাক/আরএ

সূত্রঃ দৈনিক ইত্তেফাক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: