‘আমিরাত-ইসরায়েল চুক্তি ফিলিস্তিনিদের পিঠে বিশ্বাসঘাতকতার ছুরি’ 

সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ইসরায়েলের মধ্যে চুক্তি ফিলিস্তিনি জনগণের জন্য বিশ্বাসঘাতকতার ছুরি। ফিলিস্তিনের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের রাজনৈতিক শাখার নেতা ইসমাইল হানিয়া এই মন্তব্য করেছেন।

তুরস্কের আরবি ভাষার টেলিভিশন চ্যানেল টিআরটি-কে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে ইসমাইল হানিয়া আমিরাতের কর্তৃপক্ষকে তাদের সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের আহবান জানান।

হানিয়া বলেন, তিনটি অলীক কল্পনা আরব নেতাদেরকে ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক কারণে উদ্বুদ্ধ করেছে। প্রথম অলীক কল্পনা হচ্ছে তারা মনে করেছেন মুসলমানেরা পরাজিত জাতি এবং ইসরায়েলকে তারা বিজয়ী শক্তি হিসেবে দেখছেন। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে- মুসলিম জাতি পরাজিত হতে পারে না এবং ফিলিস্তিনিরা দখল হয়ে যাওয়া ভূমি পুনরুদ্ধারের আগ পর্যন্ত তাদের সংগ্রাম থামাবে না।

তিনি আরও বলেন, দ্বিতীয় অলীক কল্পনা হচ্ছে কিছু শাসক জানেন যে, নিজের জনগণের সমর্থন ছাড়া বিদেশি সমর্থনের মাধ্যমে তাদের রাজনৈতিক বৈধতা অর্জিত হয়েছে এবং ইসরাইলের সাথে সম্পর্ক প্রতিষ্ঠা করেই শুধুমাত্র আমেরিকার সমর্থন লাভ করা সম্ভব।

হামাস এই নেতা বলেন, অনেকে বিশ্বাস করে ইসরায়েল শান্তি এবং সহবস্থানের চেষ্টা করছে কিন্তু এটাই বাস্তবতা যে, ইসরায়েল হচ্ছে দখলদার শক্তি যারা মধ্যপ্রাচ্যে বর্বরতা এবং সহিংসতা প্রতিষ্ঠা করেছে।

আমিরাত ও ইসরায়েলের মধ্যে ঐতিহাসিক এই চুক্তি নিয়ে মুসলিম বিশ্বের অনেক দেশই নাখোশ। অনেক দেশই ইতোমধ্যে এর কড়া নিন্দা জানিয়েছে।

এদিকে ইসরায়েল ও আমিরাতের মধ্যে ওই চুক্তি ছাড়াও টেলিফোন সেবা ও ফ্লাইট চালু হয়েছে।

ইত্তেফাক/এসআর

সূত্রঃ দৈনিক ইত্তেফাক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: