আরেক জাদুঘরকে মসজিদে রূপান্তরের নির্দেশ এরদোয়ানের

এবার ইস্তাম্বুলে অর্থোডক্স খ্রিস্টানদের একটি প্রাচীন চার্চ,যেটি বর্তমানে জাদুঘর হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে, সেটিকে মসজিদে রূপান্তরের নির্দেশ দিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান। এনিয়ে শুক্রবার তুরস্ক সরকারি একটি গেজেট জারি করেছে। চার্চটি বর্তমানে জাদুঘর হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে।

প্রায় এক হাজার বছর পুরনো এই চার্চটিকে ৫শ’ বছর আগে অটোমান সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠার পর মসজিদে রূপান্তর করা হয়েছিল। পরে এটিকে জাদুঘরে রূপান্তর করা হয়।

দেশটির প্রেসিডেন্ট এরদোয়ানের নতুন এই নির্দেশের ফলে এটি আবার মসজিদ হিসেবে যাত্রা শুরু করবে। ধারণা করা হচ্ছে, আগামী এক মাসের মধ্যেই সেটি বাস্তবায়ন হবে।

হাজার বছরের পুরনো পুরাকীর্তির দিক থেকে এই জাদুঘর ভবনটির অবস্থান আয়া সোফিয়ার পরেই। এটি ইউরোপঘেঁষা ইস্তাম্বুলের ‘গোল্ডেন হর্ন’ এলাকার প্রাচীনতম নিদর্শন।

আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইস্তাম্বুলে খোরা এলাকায় এটি বাইজেন্টাইনরা চার্চ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেছিল। চতুর্দশ শতকের অসাধারণ সব দেয়ালচিত্র দিয়ে ভবনটির ভেতরের দেয়াল সুসজ্জিত।

পরবর্তী সময়ে অটোমানরা ১৪৫৩ সালে কনস্টানটিনোপোল তথা বর্তমান ইস্তাম্বুল দখল করে নিলে গির্জাটি মসজিদে পরিণত করা হয়, নাম হয় কারিয়ে মসজিদ।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর কামাল আতাতুর্কের নেতৃত্বে তুরস্ক ধর্মনিরপেক্ষতার পথে হাঁটলে কারিয়ে মসজিদটিকে জাদুঘরে পরিণত করা হয়।

আমেরিকার একদল শিল্প ইতিহাসবিদের সহায়তায় ভবনটির চার্চ আমলে তৈরি মোজাইকের কারুকাজগুলো উদ্ধার করা হয়। সংস্কারকাজ শেষে ১৯৫৮ সালে এটি জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়।

এর আগে গত মাসে আদালতের রায়ে ইস্তাম্বুল শহরের খ্যাতনামা হায়া সোফিয়া জাদুঘরকে মসজিদে রূপান্তর করা হয়। এটিও এরদোয়ানের নির্দেশে করা হয়।

ইত্তেফাক/এসআর

সূত্রঃ দৈনিক ইত্তেফাক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: