বেতন কমানোর পরও প্রিমিয়ার লিগের সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক রোনালদোর

ঘরের ছেলে ঘরে ফিরেছে। এরই মধ্যে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে দুই ম্যাচে মাঠে নেমে তিন গোল করেছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। তবে ওল্ড ট্রাফোর্ডে তার এই প্রত্যাবর্তন ছিল বিস্ময়জাগানিয়া।

নতুন মৌসুমে জুভেন্টাসের হয়ে ম্যাচও খেলে ফেলেছেন পর্তুগিজ অধিনায়ক। ঠিক এমন সময়ে বার্সেলোনার সঙ্গে দীর্ঘ ২১ বছরের সম্পর্ক ছিন্ন করে পিএসজিতে নাম লেখালেন লিওনেল মেসি। এর পরই রোনালদো জুভেন্টাস ছাড়তে চান বলে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়। যদিও সেই দাবি তাৎক্ষণিকভাবে উড়িয়ে দেন সর্বকালের অন্যতম সেরা এই ফুটবলার।

No description available.

পরের গল্প সবারই জানা। রোনালদোকে কেনার জন্য দৌঁড়ঝাপ শুরু করে ম্যানচেস্টার সিটি। তারা নাকি বেশ বড় অঙ্কের অর্থ ঢালার প্রস্তুতিও নিয়ে রেখেছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত নগর প্রতিদ্বন্দ্বীদের কাছে ঘরের ছেলেকে যেতে দেয়নি ম্যানইউ। একেবারে শেষ মুহূর্তে তারা সিআরসেভেনকে ঘরে ফিরিয়ে আনে। তবে বেতন অনেকটা কমিয়েছেন তিনি। হয়তো ওল্ড ট্রাফোর্ড বলেই বেতন কমাতে রাজি হয়ে গেছেন রোনালদো।

কিন্তু তার আয়ের অঙ্কটা ঠিক কত, সেটা নিয়ে এতদিন বিভিন্ন গুঞ্জন ছিল। প্রথমদিকে জানা গিয়েছিল, ম্যানইউতে সপ্তাহে ৪ লাখ ৮০ হাজার পাউন্ড বেতন পাবেন রোনালদো। তবে ডেইলি মেইল অনলাইন জানিয়েছে, অঙ্কটা ৩ লাখ ৮৫ হাজার পাউন্ড বা প্রায় ৪ কোটি ৫১ লাখ টাকা।

No description available.

জুভেন্টাসে সপ্তাহে ৫ লাখ পাউন্ড এবং বছরে ২ কোটি ৬০ লাখ পাউন্ড বেতন পেতেন এই তারকা। কিন্তু ম্যানইউতে পাবেন সপ্তাহে ৩ লাখ ৮৫ হাজার পাউন্ড এবং বছরে ২ কোটি ২০ হাজার ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ২৩৪ কোটি ৭৪ লাখ টাকা)। অর্থাৎ প্রায় ৬০ লাখ পাউন্ড বেতন কমিয়েছেন পর্তুগিজ তারকা।

এই বেতন নিয়েও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড এবং ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের (ইপিএল) সর্বোচ্চ পারিশ্রমিকপ্রাপ্ত ফুটবলার তিনি। গোলডটকমের মতে, তালিকায় সপ্তাহে ৩ লাখ ৮০ হাজার পাউন্ড বেতন নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে ম্যানচেস্টার সিটির কেভিন ডি ব্রুইনা। তৃতীয় স্থানে ম্যানইউ গোলরক্ষক দাভিদ দে হেয়া। তিনি সপ্তাহে ৩ লাখ ৭৫ হাজার পাউন্ড বেতন পান।

ইত্তেফাক/টিএ

সূত্রঃ দৈনিক ইত্তেফাক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: