বলটা কোনো ভাবেই নো ছিল না: ওয়াগনার

ওয়েলিংটন, ০৩ জানুয়ারি – আপনি কঠোর পরিশ্রম করলেন কিন্তু ফল পেলেন না। আপনার পরিশ্রম বৃথা গেল! কতটা খারাপ লাগবে আপনার? নিজেকে নেইল ওয়াগনারের জায়গায় বসিয়ে দেখুন। নিশ্চয়ই কিউই পেসারের কষ্ট বুঝবেন!

মাউন্ট মঙ্গানুইতে টেস্টের তৃতীয় দিনের সকালে পুরোনো বলে আগুন ঝরালেন বাঁহাতি পেসার। অথচ তার পরিশ্রম সফল হলো না! পুরোপুরি সফল হলো না তা বলা যাবে না। সকালের প্রথম ঘণ্টায় নিউ জিল্যান্ডের একমাত্র সাফল্য আসে তার বোলিংয়েই। আরেকটি সাফল্যও আসতে পারত। কিন্তু আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে আটকে গেল।

ইনিংসের ৮০তম ওভারের ঘটনা। মুমিনুল হককে দারুণ এক ইনসুইঙ্গারে উইকেটের পেছনে তালুবন্দি করালেন। অনফিল্ড আম্পায়ার ক্রিস গ্রাফিনি নিউ জিল্যান্ডের আবেদনে সাড়া দিয়ে মুমিনুলকে আউটও দেন। কিন্তু বাধ সাধেন টিভি আম্পায়ার ওয়েন নাইটস। বারবার টিভি রিপ্লে দেখে তিনি নো বল কল করেন।

তাতে ক্ষিপ্ত হয়ে যান ওয়াগনার। টিভিতে বোঝা যাচ্ছিল, ওয়াগনারের বুটের কিছু অংশ বিহ্যাইন্ড দ্য লাইন ছিল। কিন্তু আম্পায়ার তাতে সন্তুষ্ট নন। তার কাছে মনে হচ্ছিল, বল রিলিজের সময় ওয়াগনারের পা বাইরে গেছে। সেজন্য নো বল করতে দ্বিধা করেননি।

তাতে মেজাজ হারান ওয়াগনার। ওভার শেষে অনফিল্ড আম্পায়ারকে উদ্দেশ্যে করে বাঁহাতি পেসার বলেন, ‘বলটা কোনোভাবেই নো ছিল না।’

সকালের এক স্পেলে বাংলাদেশের ব্যাটিং নাড়িয়ে দিয়েছিলেন ওয়াগনার। আগের রাতের ব্যাটসম্যান জয়কে দিনের শুরুতেই আউট করার পর নিয়ন্ত্রিত লাইন ও লেন্থে বোলিং করে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের কঠিন পরীক্ষা নেন। পুরোনো বলে তার ধারাবাহিকতা ছিল চোখে পড়ার মতো। ৭ ওভার বোলিং করেছেন। ২ মেডেনে ১৩ রানে নিয়েছেন ১ উইকেট।

সূত্র : রাইজিংবিডি
এন এইচ, ০৩ জানুয়ারি

বলটা কোনো ভাবেই নো ছিল না: ওয়াগনার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: