বুন্দেসলিগায় বায়ার্নের শিরোপার রেকর্ড

টানা অষ্টমবারের মতো বুন্দেসলিগার শিরোপা জিতলো বায়ার্ন মিউনিখ। রবার্ট লেওয়ানদোস্কির একমাত্র গোলে ওয়েরডের ব্রেমেনকে হারিয়ে আবারো শিরোপার স্বাদ পেলো বাভারিয়ানরা। লিগের রেকর্ড ৩০তম শিরোপা জয়েও সাদামাটা উদযাপন করেছে বায়ার্ন।

বুন্দেসলিগার শিরোপা যেন বায়ার্ন মিউনিখে কাছে এখন ডালভাতের মতো। বলা যায় বুন্দেসলিগা হবে আর বায়ার্ন শিরোপা জিতবে না তা যেন মানার মতো নয়। এ কারণেই শিরোপা জয়ের উচ্ছ্বাসটাও হয়তো তাদের কাছে পানসে হয়ে গেছে। ট্রফিটা বাভারিয়ানদের কাছে ডালভাত হয়ে গেছে। লিগের শুরুতে কিছুটা দুর্বলতা ছিলো। সেটা কাটিয়ে উঠতে সময় লাগেনি। কোভিড নাইনটিনও থামতে পারেনি। টানা অষষ্টম শিরোপা বায়ার্ন মিউনিখের। লিগের ইতিহাসে রেকর্ড ৩০তম।

মঞ্চ ছিলো প্রস্তুত। ওয়েডার ব্রেমেনের আতিথ্য নিয়ে এ ম্যাচেই টাইটেল নিশ্চিত করতে হবে সে লক্ষ্যও ছিলো। ম্যাচের শুরু থেকে নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখে বাভারিয়ান। কিন্তু গোলে দেখা নেই।অপেক্ষার শেষ হয় ৪৩ মিনিটে। বোয়েটাংয়ের অ্যাসিস্টে লেভানদস্কির দারুণ নিশাবাজী। আসরের সর্বোচ্চ গোলদাতা। এটা তার ৩১তম গোল। মৌসুমজুড়ে বৃহস্পতি তুঙ্গে পোলিশ স্টাইকারের। সব প্রতিযোগিতা মিলে এ মৌসুমে ৪০ ম্যাচে করেছেন ৪৬ গোল।

দ্বিতীয়ার্ধে ব্যবধান দিগুন করার সুযোগ পেয়েছিলেন লেভানদস্কি। থমাস মুলারের ক্রস থেকে ফিনিশিংয়ে ব্যর্থ। ম্যাচের ৮০ মিনিটে ১০ জনের দলে পরিণত হয় বায়ার্ন মিউনিখ। দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন মিডফিল্ডার আলফুঁস ডেভিস।

শেষ মুহূর্তে গোল খেতে বসেছিলো ১০ জনের বায়ার্ন। রক্ষা করেন কিপার ম্যানুয়েল নয়্যার। শেষ পর্যন্ত আর কোনো বিপদ আসেনি। ১-০ গোলের জয় দিয়ে টানা অষ্টম শিরোপা নিশ্চিত করে বাভারিয়ানরা।

গ্যালারিতে দর্শক নেই। কোভিড নাইনটিন সবকিছুতে লাগাম টেনে ধরেছে। উদযাপনও তাই সাদামাটা। লিগের শুরুতে কিছুটা বিপদে পড়েছিলো জার্মান চ্যাম্পিয়নরা। প্রথম ১৪ রাউন্ডের ৪ টিতে হেরে শিরোপা হাতছাড়ার শঙ্কা জেগেছিলো। কিন্তু চ্যাম্পিয়নের মতো বাউন্স ব্যাক করে বায়ার্ন। শেষ পর্যন্ত দুই ম্যাচ হাতে রেখে ট্রফি নিশ্চিত করে বায়ার্ন মিউনিখ।

ইত্তেফাক/এসআই

সূত্রঃ দৈনিক ইত্তেফাক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: