রিপাবলিকানদের সম্মেলনে পৃষ্ঠপোষক ফেসবুক

আগামী জুলাই মাসে ক্লেভেল্যান্ডে অনুষ্ঠিতব্য মার্কিন রিপাবলিকান পার্টির সম্মেলনের (জিওপি কনভেনশন) পৃষ্ঠপোষক হিসেবে থাকছে ফেসবুক। যদিও একটি গোষ্ঠী টেক কোম্পানিগুলোকে তাদের সমর্থন ফিরিয়ে নেওয়ার অনুরোধ করছে, এরপরও সোমবার জিওপি কনভেনশনে পৃষ্ঠপোষকতার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে ফেসবুক।

দীর্ঘদিন ধরে অভিবাসীদের নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বিভিন্ন মনোভাব ও সিদ্ধান্ত এবং যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণের বিরোধীতা করে আসছিলেন ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ। এ নিয়ে তাদের মধ্যে একধরনের উত্তেজনা চলছে দীর্ঘ সময় ধরেই, যদিও জাকারবার্গ কখনোই ট্রাম্পের নাম উল্লেখ করেননি। এরপরও ট্রাম্প সমর্থকরা দাবি করেন, যুক্তরাষ্ট্রের সীমান্তকে কাছ থেকে দেখলেই জাকারবার্গের দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন হতে পারে।

মাইক্রোসফট ইতোমধ্যে জানিয়ে দিয়েছে, তারা এই সম্মেলনে শুধুমাত্র টেকনোলজি সাপোর্ট দিবে, কোনো আর্থিক সহায়তা নয়। অপরদিকে কোকা-কোলাও একরকম নাটকীয়ভাবেই এই সম্মেলন থেকে তাদের সমর্থন ফিরিয়ে নিয়েছে। তবে ফেসবুক বলছে, এই সম্মেলনে পৃষ্ঠপোষকতা বা আর্থিক সহায়তা দেয়া মানেই তাদের পুরোপুরি সমর্থন করা, বিষয়টি এমন নয়। বরং তারা চায় এই সম্মেলনে মার্কিন ভোটার, প্রার্থী এবং নির্বাচিত কর্তৃপক্ষের মধ্যে সরাসরি আলোচনার একটি মঞ্চ সৃষ্টি হোক।

জিওপি কনভেনশনে অংশ নেয়া টেক কোম্পানিগুলো একটি লাউঞ্জকে স্পন্সর করবে। রিপাবলিকান পার্টির সম্মেলন-২০১২ তে ফেসবুক অংশগ্রহণকারীদের জন্য একটি ফটো স্পটের ব্যবস্থা করেছিল।

তবে ইতোমধ্যে ক্রিডো অ্যাকশন নামের একটি টেক কোম্পানি রিপাবলিকান পার্টির সম্মেলন থেকে গুগল ও মাইক্রোসটের সমর্থন ফিরিয়ে নিয়ে ৬৫ হাজার মানুষের গণ-স্বাক্ষর সংগ্রহ করেছে। তাদের দাবি, রিপাবলিকান পার্টির সম্মেলনে যে কোনো ধরনের সমর্থন করা বা এর পৃষ্ঠপোষকতা করার অর্থ হলো ট্রাম্পের বিতর্কিত সিদ্ধান্তগুলো প্রতি সমর্থন দেয়া। মাইক্রোসফট বা গুগলের মতো টেক কোম্পানিগুলোর জন্য এমন সিদ্ধান্ত চরম পর্যায়ের দায়িত্বহীনতার পরিচয় দেয় এবং একই সঙ্গে তা বিপজ্জনকও বটে।

ইত্তেফাক/জেডএইচডি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: